ঈদের ছুটিতে সিলেটে চার লাখ পর্যটক, প্রাণ ফিরেছে পর্যটনে - Shimanterahban24
April 1, 2023

Shimanterahban24

Online News Paper

ঈদের ছুটিতে সিলেটে চার লাখ পর্যটক, প্রাণ ফিরেছে পর্যটনে

1 min read

ভোলাগঞ্জের সাদা পাথরে নেমেছেন বিল্লাল হোসেন। পেশায় একজন ব্যাংকার। ঈদের ছুটিতে হবিগঞ্জ থেকে সিলেটের পাথররাজ্য ভোলাগঞ্জে এসেছেন তিনি। সঙ্গে স্ত্রী ও তিন সন্তান। সাদাপাথরে নেমেই মনে যেন এক প্রশান্তির ছোঁয়া। তিনি জানালেন মনটা অনেকদিন ধরে কিছুদিনের জন্য পালাই পালাই করছিল। ঈদের ছুটিতে অবশেষে সেই সুযোগটা কাজে লাগালাম। আর বিশেষ করে পরিবারসহ সাদা পাথরে আসতে পেরে কি যে ভালো লাগছে-তা বলে শেষ করা যাবে না।

ঈদের ছুটিতে রেকর্ড সংখ্যক দর্শনার্থীর পদচারনায় মুখর প্রকৃতিকন্যা জাফলং।- ছবি: আহমেদ শাহীন

শুধু বিল্লাল হোসেন নয়, ঈদের ছুটিতে সিলেটের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে এভাবেই বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাস দর্শনার্থীদের। প্রকৃতির টানে ছুটে আসা এই মানুষগুলোর পদচারণায় সিলেটের পর্যটন স্পটগুলো এখন লোকে লোকারণ্য। ঈদের দ্বিতীয় দিনেও মুখরিত হয়ে উঠেছে সিলেটের পর্যটন স্পটসমূহ। ঈদের দিন বিকালে সিলেট নগরী ও শহরতলীর প্রতিটি পর্যটন স্পটে পর্যটকদের ভিড় ছিল দেখার মতো।

ঈদের ছুটিতে রেকর্ড সংখ্যক দর্শনার্থীর পদচারনায় মুখর প্রকৃতিকন্যা জাফলং।- ছবি: আহমেদ শাহীন

এদিকে বুধবার (৪ মে) ঈদের দ্বিতীয় দিনে জাফলং, লালাখাল, রাতারগুল, বিছনাকান্দি, পান্তুমাই, ভোলাগঞ্জ সাদাপাথর, দরগাহে হযরত শাহজালাল (র.) মাজারের পাশাপাশি সিলেট নগরীর বিভিন্ন পার্কগুলোতে দল বেঁধে গাড়ি নিয়ে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। সিলেটের সবকটি হোটেল-মোটেলও বুকড।

ভারতের মেঘালয় পাহাড় ঘেঁষা প্রকৃতির অপরূপ লীলাভূমি প্রকৃতি কন্যা জাফলং, পান্তুমাই’র ঝর্ণা, বিছনাকান্দির স্বচ্ছ-সফেদ পানি আর সোয়াম্প ফরেস্ট খ্যাত রাতারগুল, ভোলাগঞ্জের জিরো লাইনে সাদা পাথরের অপরুপ দৃশ্য এক নজর দেখতে কার না মন চায়!

ঈদের ছুটিতে রেকর্ড সংখ্যক দর্শনার্থীর পদচারনায় মুখর প্রকৃতিকন্যা জাফলং।- ছবি: আহমেদ শাহীন

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুসিকান্ত হাজং বলেন, পর্যটকদের বরণ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগাম প্রস্তুতি ছিল। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোয় লাল নিশানা টাঙিয়ে রাখা হয়েছিল। এ ছাড়া স্বেচ্ছাসেবী এবং স্থানীয় ডুবুরি রয়েছেন যাতে পর্যটকেরা পানিতে তলিয়ে গেলে উদ্ধার অভিযানে তাৎক্ষণিক নামতে পারেন। তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিদিন পর্যটনকেন্দ্রটিতে এক লাখ পর্যটকের সমাগম হবে বলে আমরা ধারণা করেছিলাম। আজ সেটির প্রতিফলন দেখেছি।’

এছাড়া সিলেট নগরীর অভ্যন্তরের ধোপাদিঘীর পাড় এলাকার এম এ জি ওসমানী শিশু পার্ক, শহরতলীর দক্ষিণ সুরমা এলাকায় শেখ হাসিনা শিশু পার্ক, হযরত শাহজালাল (রহ.) দরগাহ প্রাঙ্গণ এবং কোম্পানীগঞ্জ সড়কে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হাইটেক পার্কে ভিড় ছিল পর্যটকদের।

সিলেট অঞ্চলের ট্যুরিস্ট পুলিশ সুপার মো. আলতাফ হোসেন জানিয়েছেন, ‘ঈদ–পরবর্তী সময়ে চার দিন সিলেটের পর্যটনকেন্দ্রগুলোয় স্থানীয় পর্যটকসহ গড়ে আট লাখ পর্যটক উপস্থিত থাকবেন বলে ধারণা করছি। এ জন্য ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

তিনি নিজে পর্যটনকেন্দ্রগুলো পর্যবেক্ষণ করেছেন বলে জানিয়েছেন।

ঈদ আনন্দকে ভাগাভাগি করতে লাক্কাতুড়া চা-বাগানে পর্যটকদের ঢল।- ছবি: আহমেদ শাহীন

তিনি বলেন, পর্যটনকেন্দ্রগুলো ঘুরে সেখানকার দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে পর্যটকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া পর্যটকদের সতর্কতার জন্য পর্যটনকেন্দ্রগুলোয় নির্দেশনামূলক ফেস্টুন লাগানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া নিরাপত্তার জন্য পর্যটকদের পানিতে নামার ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে।

ক্ষিণ সুরমার আলমপুরে শেখ হাসিনা পার্কে বিনোদনপ্রেমিদের উপচে পড়া ভিড়।-ছবি রেজা রুবেল

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, সিলেট জেলা পুলিশ এরই মধ্যে সিলেটের ১০টি পর্যটনকেন্দ্র ও জনসমাগমস্থল চিহ্নিত করেছে। এসব কেন্দ্রে ট্যুরিস্ট পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করে নিরাপত্তাবেষ্টনী তৈরি করা হবে। এ ছাড়া সাদাপোশাকেও গোয়েন্দা পুলিশ নিযুক্ত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.