• Thu. Apr 15th, 2021
Top Tags

পাঞ্জাবি-টুপি পরা ও দাড়ি রাখায় দুই শিক্ষককে অব্যাহতি: সিলেট ক্যান্টনমেন্টের সামনে বিক্ষোভ

ByManaging Editor

Apr 3, 2021

জাহিদুল ইসলাম।। 

পাঞ্জাবি-টুপি পরা ও দাড়ি রাখায় জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের পদার্থবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক আব্দুল হালিম ও আইসিটি বিভাগের প্রভাষক মুজাহিদুল ইসলামকে অব্যাহতি প্রদানের অভিযোগ ওঠার পর শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষ ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেন।

শনিবার (৩ এপ্রিল) কলেজের সামনে প্রতিষ্ঠানের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন। অবিলম্বে শিক্ষকদের স্বপদে বহাল ও বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি জানান তারা।

এদিকে কলেজ কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, ‘এ দুই প্রভাষককে অব্যাহতি দেয়া হয়নি। বরং প্রতিষ্ঠানের পোষাকবিধি মানতে না পারলে তারা স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিতে পারবেন- এমনটাই বলা হয়েছে।’

যদিও অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মো. কুদ্দুসুর রহমানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আজ দুপুরে কলেজের সামনে মানববন্ধনকালে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে এ কথা বলেন কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল আরিফুল ইসলাম রেজা।

তিনি দাবি করেন, ‘অনলাইনে যে বিষয়টি ভাইরাল হয়েছে তা সত্যি নয়। প্রভাষক আব্দুল হালিম ও মুজাহিদুল ইসলামের বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি বা তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়নি। গভর্নিং বডির ৫২ তম মিটিংয়ে তাদেরকে ডেকে প্রতিষ্ঠানের পোষাকবিধি মানার জন্য কঠোরভাবে বলা হয় এবং ৩১ মার্চের আগে তাদেরকে তিনবার শোকজ পাঠানো হয়। কিন্তু বার বারই তারা দুজন প্রতিষ্ঠানের পোষাকবিধি মানতে অনীহা প্রকাশ করেন। সর্বশেষ ৩১ মার্চ গভর্নিং বডির মিটিংয়ে তাদেরকে ডেকে বলা হয়- প্রতিষ্ঠানের পোষাকবিধি না মানলে স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিতে পারেন। তবে তাদেরকে চাকরিচ্যুত করা হয়নি। এটাই তাদের বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ।’

এ বিষয়ে প্রভাষক আব্দুল হালিম বলেন, ‘আমি ও প্রভাষক মুজাহিদুল ইসলাম নিয়োগের সময় পাঞ্জাবি-টুপি পরে কলেজে আসার জন্য গভর্নিং বডির কাছে আবেদন করি। আমাদের তখন লিখিতভাবে অনুমতি প্রদান করা হয়। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের সাবেক অধ্যক্ষ কর্নেল সোহেল উদ্দিন পাঠান এ বিষয়ে বেঁকে বসেন। তিনি আমাদেরকে শার্ট-প্যান্ট পরে আসতে চাপ সৃষ্টি করেন। এরই ধারাবাহিকতায় বর্তমান অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মো. কুদ্দুসুর রহমান তিনবার আমাদেরকে নোটিশ প্রদান করেন। সর্বশেষ গত ৩১ মার্চ গভর্নিং বডির বৈঠক ডেকে আমাদেরকে আর কলেজে না আসতে মৌখিকভাবে জানিয়ে দেন।’

তবে আমাদেরকে লিখিতভাবে এখনও কিছু জানানো হয়নি বলেও জানান তিনি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *