Main Menu

বিশ্বজয়ী আন্তর্জাতিক হাফেজের পিছনে তারাবি পড়ে আমরা আনন্দিত

সিলেট জেলা প্রতিনিধি :: গোয়াইনঘাটের কৃতি সন্তান আন্তর্জাতিক হাফেজ হুসাইন আহমেদ ২০১৮ সালে সৌদিআরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক ক্বুরআন প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করে বিশ্বের ১২০ টি দেশের মধ্যে ৪র্থ স্থান অর্জন করেন। এমন একজন আন্তর্জাতিক হাফেজের পেছনে নামাজ পড়ার আকাঙ্ক্ষা কার মনে না জাগে? তারই প্রতিফলন ঘটলো গোয়াইনঘাটের হোঁয়াউরা গ্রামের সূর্য্যসন্তান দারুল উলূম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় তাফসির বিভাগে পড়ুয়া ছাত্র মাওলানা ফজলুর রহমান শামীমের মনে।

মাওলানা শামীমের ভাষ্যমতে,”করোনা ভাইরাসের কারনে মাদ্রাসা সম্পূর্ণ রমজান বন্দ থাকার ঘোষণা আসে এতে আমি বাড়িতে অবস্থান করি। অপর দিকে সরকারি নির্দেশ ছিল ১২ জন করে জামাতে নামাজ পড়ার(কিছুদিন পর তা বাতিল করা হয়)।এমন পরিস্থিতিতে কিছু ভেবে পাচ্ছিলাম না কিভাবে তারাবির নামাজ জামাতে পড়া যায়। আবার আমার দীর্ঘ দিনের সপ্ন ছিল বিশ্বজয়ী আন্তর্জাতিক হাফেজ ক্বারি হুসাইনে পিছনে নামাজ পড়ব কিন্তু সময় সুযোগে তা হয়ে উঠেনি। ভাবলাম লকডাউনে এই সুযোগটা কাজে যায় কিনা? আমি হাফেজ হুসাইনের খোজ নিতে থাকলাম কিন্তু প্রতি বছরের ন্যায় এ বছর ও শহরের একটি নামকরা মসজিদে তারাবির নামাজ পড়ানোর জন্য সে সিলেক্ট হয়ে যায়।অবশেষে আমি তিন জন হাফেজ কে নিয়ে সরকারি নির্দেশ মেনে আমার রুমে তারাবি পড়া শুরু করে দিলাম। কিন্তু হাফেজ হুসাইনের সাথে আমার নিয়মিত যোগাযোগ চলতে থাকে। আমি তাদের বাড়িতে গিয়ে তার পিতামাতাকে অনেক চেষ্টা করে রাজি করলাম হাফেজ হুসাইনকে আমার বাড়িতে নিয়ে এসে নামাজ পড়ানো জন্য(যদিও প্রথমে তারা রাজি ছিলেন না নিরাপত্তাজনিত কারনে)। অবশেষে ২২ থেকে ৩০ তারাবি পর্যন্ত আমরা হাফেজ হুসাইনের পিছনে নামাজ পড়ি”।

পরিশেষে তিনি(শামীম) তার মনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন,”দীর্ঘ ৮ দিন একজন আন্তর্জাতিক মানের হাফেজে কুরআনের পিছনে নামাজ পড়ে আমরা সত্যি অনেক আনন্দিত। এবং আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেক আনন্দিত আমার দীর্ঘ দিনের সপ্নকে পূরন করতে পেরে”।

জুন মাসে জর্ডানে কুরআন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার জন্য বাংলাদেশ থেকে তিনি(হুসাইন) সিলেক্ট হয়েছেন। এতে সবার কাছে তিনি দোয়া প্রার্থী যেন, বাংলাদেশকে তিনি ভালো কিছু উপহার দিতে পারেন।সর্বশেষ তারাবি শেষে হাফেজ হুসাইনেকে সংবর্ধনা ও ক্রেষ্ট প্রদান করেছেন মাওলানা ফজলুর রহমান শামীম, মোঃ আব্দুর রাকিব,হাফেজ নাজিম উদ্দিন। গ্রামের অন্যান্য তালাবাগন ও এতে উপস্থিত ছিলেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *