Main Menu

কুমিল্লা দুই শিশুর করোনার কোন উপসর্গ নেই! তবে করোনা পজেটিভ

কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা বুড়িচংয়ে দুই শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান। এদিকে দুই শিশুর করোনা পজেটিভ হওয়ায় বুড়িচং উপজেলা প্রশাসন ময়নামতি ইউনিয়নের জিয়াপুর গ্রামটিকে লগডাউন ঘোষনা করে।

জানা যায়, গত রবিবার রাত ১১টার দিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফার মা সাহেদা খাতুনের (৬৫) মৃত্যু হয়। পরে সোমবার মোস্তফা পরিবার নিয়ে বুড়িচংয়ে গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। এ খবর পেয়ে প্রশাসন থেকে ওই পরিবারটিকে লগডাউন করা হয়। পরে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ওই পরিবারের ছয় জনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। আজ রিপোর্টে ওই পরিবারের দুই শিশু করোনা পজেটিভ ধরা পরে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান বলেন, আমরা ছয় জনের নমুনা পাঠিয়েছিলাম । আজ রিপোর্ট এসেছে। যার মধ্যে দুই শিশুর করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে।
তাদের এখন কি অবস্থা এমন প্রশ্নের জবাবে সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান জানান, ওই শিশুদের কোন উপসর্গ নেই। তবে তারা করোনা ভাইরাস বহন করছে। তাদেরকে বাড়ীতে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। বাড়িতেই তাদের চিকিৎসা চলছে।

কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা বুড়িচংয়ে দুই শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান। এদিকে দুই শিশুর করোনা পজেটিভ হওয়ায় বুড়িচং উপজেলা প্রশাসন ময়নামতি ইউনিয়নের জিয়াপুর গ্রামটিকে লগডাউন ঘোষনা করে।

জানা যায়, গত রবিবার রাত ১১টার দিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফার মা সাহেদা খাতুনের (৬৫) মৃত্যু হয়। পরে সোমবার মোস্তফা পরিবার নিয়ে বুড়িচংয়ে গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। এ খবর পেয়ে প্রশাসন থেকে ওই পরিবারটিকে লগডাউন করা হয়। পরে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ওই পরিবারের ছয় জনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। আজ রিপোর্টে ওই পরিবারের দুই শিশু করোনা পজেটিভ ধরা পরে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান বলেন, আমরা ছয় জনের নমুনা পাঠিয়েছিলাম । আজ রিপোর্ট এসেছে। যার মধ্যে দুই শিশুর করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে।
তাদের এখন কি অবস্থা এমন প্রশ্নের জবাবে সিভিল সার্জন নিয়াতুজ্জামান জানান, ওই শিশুদের কোন উপসর্গ নেই। তবে তারা করোনা ভাইরাস বহন করছে। তাদেরকে বাড়ীতে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। বাড়িতেই তাদের চিকিৎসা চলছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *