আটমৌজা উলামা পরিষদ কোওরবাজারের বৈচিত্রময় উদ্যোগ; ১১০ পরিবার পেলো ৩দিনের খাবার - Shimanterahban24
June 10, 2023

Shimanterahban24

Online News Paper


Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/shimante/public_html/wp-content/themes/newsphere/lib/breadcrumb-trail/inc/breadcrumbs.php on line 254

আটমৌজা উলামা পরিষদ কোওরবাজারের বৈচিত্রময় উদ্যোগ; ১১০ পরিবার পেলো ৩দিনের খাবার

1 min read

আবু তালহা তোফায়েল :: করোনাভাইরাস সচেতনতায় বাংলাদেশ সরকার হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়ায় বিপাকে পড়ছে দিনমজুর ও শ্রমজীবী মানুষেরা। সরকারের দেয়া অনুদানে অসহায়রা সামান্যতম সহায় পেলেও পরিপূর্ণভাবে জীবিকা নির্বাহ করতে পারছেনা।

তাই সরকারের নির্দেশনা মেনে ০৪ এপ্রিল (শনিবার) সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার অন্তর্ভুক্ত কোওরবাজার আটমৌজা উলামা পরিষদের উদ্যোগে প্রায় ১১০টি পরিবারের মাঝে ৫ কেজি করে চাল, আলু, পেয়াজ, লবণ, তেল ও সাবানসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
সরকারের নির্দেশনা মেনে চলতে উলামা পরিষদের সদস্যরা এলাকার গরীব অসহায়দের তালিকা করে তাদের বাড়িতে ত্রাণ পৌঁছে দেয়। যাহাতে তারা লক ডাউন থেকে বের না হয়৷

খাদ্য সামগ্রী বিতরণে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুল্লাহ ক্বাসেমী, আলহাজ্ব মাওলানা জমশেদ আলী ক্বাসেমী, আলহাজ্ব মাওলানা ইজ্জত উল্লাহ, মাওলানা আব্দুল মতিন, মাওলানা সুহেল আহমেদ, মাওলানা ইউনুস আলী প্রমুখ।

এসময় উলামা পরিষদের সদস্যরা বলেন- মানবসন্তানের জীবন, মাল এবং জীবিকার নিরাপত্তার সকল দুনিয়াবি উৎসকে নির্মুল করে দিতে উদ্যত। এই পরিস্থিতিতে শুধুমাত্র আমাদের সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা পরম করুণাময় আল্লাহ্ সুবহানা ওয়া তায়ালার আশ্রয় গ্রহণ ব্যতিরেকে সৃষ্টিকূল উপায়হীন। আসুন আমরা এ অবস্থা হতে পরিত্রাণের জন্য পরম দয়ালু আল্লাহ্ তায়ালার শরণাপন্ন হই, আরো বেশি বেশি তওবা, ইস্তেগফার, ইবাদত, যিকিরে নিবেদিত হই।

আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশও আজ কোভিড ১৯ মহামারীর ছোবলে। এই ভয়ানক বিপদ থেকে বেঁচে থাকার লক্ষ্যে আমাদের আধ্যাত্মিক এবং শারীরিক উভয়দিকের প্রতিকারের উদ্যোগ নিতে হবে সচেতনভাবে। এ লক্ষ্যে আমাদের তাওবা ইস্তেগফার, আল্লহর ইবাদাত বন্দেগীতে ব্রতী হতে হবে ব্যক্তিগতভাবে। মাক্বাসিদুশ্ শারীয়াহ্ তথা শরীয়তের উদ্দেশ্য অনুযায়ী জানমাল রক্ষার অগ্রাধিকারের শর্ত পূরণে আমাদের সামাজিক ধর্মীয় নীতিমালা নির্ধারণ মেনে চলতে হবে। নফসজনিত ঠুনকো আবেগ নয়, দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে ইসলামের মৌলিক দিক নির্দেশনাকে প্রয়োগ করতে হবে।জনগণের নিরাপত্তায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশ এবং নীতিমালা মেনে চলতে হবে।

নিজের, পরিবারের এবং সমাজের নিরাপত্তাবিধানে অগ্রণী হতে হবে। এমনকি অজ্ঞাতসারেও অপরের জানমালের জন্য ক্ষতিকর কর্মকান্ড থেকে সতর্কতার সাথে বিরত থাকতে হবে এবং অপরকে সচেতন করতে হবে।

দরিদ্র এবং অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশী, পরিচিতজনের সহযোগিতায় সাধ্যমত এগিয়ে আসতে হবে। কোন রকমের উম্মাদনা কিংবা প্ররোচনায় সহযোগিতা, সমর্থন থেকে বিরত থাকতে হবে। গৃহে অবস্থানকালীন সময় আত্মা, মেধা মনন এবং শরীরের জন্য গঠনমূলক কাজে নিবেদিত হতে হবে। ‘সবর’এর সাথে সকলে মিলে এই দুর্যোগে সচেতন থেকে প্রতিরোধ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.