Main Menu

করোনায় আতঙ্কিত না হয়ে আল্লাহর ওপর ঈমান রেখে সচেতন থাকতে হবে: আল্লামা বাবুনগরী

হাটহাজারী প্রতিনিধি।। 

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে আতঙ্কিত না হয়ে মহান আল্লাহ তায়া’লার উপর ঈমান এবং আকিদা বিশ্বাস ঠিক রেখে সচেতন থাকতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও দারুল মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী মহাপরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

তিনি বলেন, পশ্চিমা মিডিয়ার কারসাজিতে করোনা ভাইরাস আজ পুরো বিশ্বে এক আতঙ্কের নাম হয়ে দাড়িয়েছে। এ ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে ইসলামের নির্দেশনা ও আকিদা-বিশ্বাসের উর্ধ্বে গিয়ে আজ আমরা মিডিয়ার তালে তাল মিলাচ্ছি। এমনকি মিডিয়ার থাবা থেকে বাঁচতে করোনায় আক্রান্ত রোগী হসপিটাল থেকে পালিয়ে নিজেকে লুকাতে চাচ্ছে। কেহ করোনায় আক্রান্ত হলে মিডিয়া তাকে নিয়ে এমনভাবে লাফালাফি করছে যার দরুন তার পরিবার,সমাজ,রাষ্ট্র সব কিছু থেকে তাকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হচ্ছে। পশ্চিমা মিডিয়ার এ পরিকল্পিত কারসাজিতে পুরো বিশ্ব যেন আজ অবরুদ্ধ।

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, বাস্তবেই কেহ যদি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তাহলে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী তাকে কোয়ারেন্টাইনে থাকা উচিত।

রবিবার (২২ মার্চ) সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের সাথে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, এ ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে মসজিদে জামাত সহকারে নামাজ পড়তে নিষেধ করা হচ্ছে, জুমুআ বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। কুরআন ও হাদীসের ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ করা হচ্ছে। কিন্তু কই!অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের উপসনালয়গুলো বন্ধের তো কোন এতো আওয়াজ উঠছেনা! মসজিদে কম যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে কিন্তু মন্দির প্যাগোডার কথা তো তেমন বলা হচ্ছে না!

তিনি বলেন, হাদীস শরীফে আছে, হযরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কোনো আযাব-গযব দেখলে সাথে সাথে মসজিদে যেতেন। আর আজ মসজিদে যেতে বারন করা হচ্ছে। একটু গভীর দৃষ্টিতে চিন্তা করলেই বুঝা যায় এই করোনা ভাইরাস নিয়ে ইহুদি খ্রিস্টান আর পশ্চিমা মিডিয়াগুলো তাদের হীন উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য কতটা উঠেপড়ে লেগেছে। প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে মসজিদ বন্ধের কোন যৌক্তিকতা নেই। এই নাজুক মুহূর্তে মসজিদে মসজিদে বিশেষ দুআ কুনুতে নাজেলা পাঠ এবং মাদরাসায় বিভিন্ন দুআ-দরূদ, খতমে কুরআন শরীফ, খতমে বুখারী শরীফ, দুআ ইউনুসের আয়োজন করে করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে মহান প্রভূর দরবারে কায়মনোবাক্যে রোনাজারির সহিত দুআ করতে হবে।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, মহামারি আসছে আল্লাহ তায়া’লার নাফরমানি, অবাধ্যতা আর ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ডের দরুন। তাই এ মুহুর্তে সারা দেশে ইসলাম বিরোধী সকল কার্যক্রম বন্ধ করা সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

রোগীর দেখাশোনা ও সেবা-শুশ্রূষাও একটি ইবাদত উল্লেখ করে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা সেবা দিতে ডাক্তারদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) রোগীর সেবা-শুশ্রূষা করা, তাকে সান্ত্বনা দেওয়াকে সর্বোচ্চ সৎকাজ এবং গ্রহণযোগ্য ইবাদত হিসেবে ঘোষণা করেছেন। রাসুল (সা.) স্বয়ং রোগীদের ঘরে গিয়ে তাদের দেখাশোনা করতেন এবং তাদের সঙ্গে এমন কথা বলতেন যাতে তাদের মনে প্রশান্তি আসত, দুশ্চিন্তা হালকা হয়ে যেত। হাদীস শরীফে আছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা ক্ষুধার্তদের অন্ন দাও, রোগীদের সেবা করো এবং বন্দিদের মুক্তি দাও।’ আপনারা সেবার মহৎ কাজ করে যাচ্ছেন। এখলাছ ও নিষ্ঠার সাথে সেবার কাজ চালিয়ে যান, আল্লাহ তায়া’লার নিকট এর উত্তম বিনিময় পাবেন। যোগ করেন আল্লামা বাবুনগরী।

দেশবাসীর প্রতি আল্লামা বাবুনগরী বলেন, গান, বাদ্যবাজনা,বেপর্দা জেনা-ব্যভিচার,হত্যা-লুণ্ঠন,দুর্নীতি-চাঁদাবাজি,সুদ-ঘুষ, আত্মসাৎ,মদ-জুয়া, জুলুম-নির্যাতনসহ সব অন্যায় কাজ ছেড়ে মহান প্রভুর দরবারে খাটি দিলে তাওবা,দুআ ও কান্নাকাটি করুন। এবং নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। আতংকিত না হয়ে সচেতন থাকাসহ এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জরুরী দিকনির্দেশনা মেনে চলুন






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *